আঁচিল সমস্যায় ভুগছেন?জেনে নিন প্রাকৃতিক উপায়ে আঁচিল ঝরানোর নিয়মাবলী

আঁচিলের কারণে অনেক সময় সৌন্দর্যে ভাটা পড়ে। শরীরের নানা স্থানে আঁচিল হতে দেখা যায়।এটি সাধারণত কালো, বাদামী, লাল, গোলাপি রঙের হয়ে থাকে।একেক জনের ক্ষেত্রে এর আকার, আকৃতি ভিন্ন ভিন্ন রকম হয়। এটি অনেক সময় এমনিতেই সেরে যায়। অনেক সময় রয়ে যায় স্থায়ী দাগ হয়ে।আঁচিল দূর করা যায় দুই ভাবে। সার্জিক্যালি এবং প্রাকৃতিক উপায়ে।

আঁচিল সমস্যা সমাধানে কয়েকটি নিরাপদ ঘরোয়া উপায় জেনে রাখা ভালো।নিজের এবং অন্যের প্রয়োজনে যেকোনো সময় কাজে দিতে পারে।অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার খুবই পরিচিত একটি নাম। দিনে দু’বার আঁচিলের ওপর তুলোয় করে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।চোখের পাতায় যদি লাগান খেয়াল রাখুন যাতে ভেতরে না যায়। নিয়মটি অনুসরণ করুন ২-৪ সপ্তাহ। আঁচিল ঝরে পড়বে।ক্যাস্টর ওয়েল এবং বেকিং সোডা একসাথে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে আঁচিলের ওপর ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকালে ধুয়ে নিন।সবচেয়ে ভালো ফল পেতে রাতে লাগিয়ে রেখে সকালে ধুয়ে নেবেন।দ্রুত আঁচিল করার জন্য টি ট্রি ওয়েল অত্যন্ত কার্যকরী। সুপার শপ বা শপিং মলে এই তেল পাওয়া যায়।ভেজা তুলায় ক’ফোঁটা টি ট্রি ওয়েল নিয়ে আঁচিলের ওপর মিনিট দশেক লাগিয়ে রাখুন। রোজ ব্যবহার করুন, আঁচিল ঝরে পড়বে সপ্তাহ খানেকের মধ্যে।আঁচিলের অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসায় আপনাকে একটু ধৈর্য্ ধরে চর্চা করতে হবে। যেকোন উপায় সপ্তাহখানেক মেনে দেখুন।এর মধ্যে ঝরে না পড়লে অন্য পদ্ধতি অবলম্বন করুন। ব্যক্তিভেদে পদ্ধতি পার্থক্যের সৃষ্টি করে। কেউ কেউ আঁচিল সারাতে চিকিৎসকের পরামর্শ নেন।সার্জিক্যালি করতে গেলে চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে আঁচিল দূর করা সবচেয়ে নিরাপদ উপায়।নখ দিয়ে আঁচিল খোঁচা-খুঁচি করবেন না। এতে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে।তবে আঁচিলের সবচেয়ে কার্যকর চিকিত্সা রয়েছে হোমিওপ্যাথিতে।এ সমস্যায় ভুগলে আপনার আশেপাশের ভালো এবং রেজিস্টার্ড কোন হোমিও ডাক্তারের সাথে যোগযোগ করে প্রপার ট্রিটমেন্ট নিন।

জেনে নিন কেন খাবেন ইসবগুলের ভুসি

ইসবগুলের অনেক উপকারিতা রয়েছে।
কোষ্ঠকঠিন্যতায় : এ সমস্যা হলে ৫-১০ গ্রাম ইসবগুল নিয়ে ১ কাপ ঠাণ্ডা বা গরম পানিতে আধাঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে তাতে ২-৩ চামচ চিনি মিশিয়ে সকালে খালি পেটে খেলে বা রাতে শোয়ার আগে খেলে উপকার পাওয়া যায়। এতে রয়েছে প্রাকৃতিক উপাদান যা আমাদের পেটের পীড়া, কোষ্ঠকঠিন্যতায় উপকারী। যারা দীর্ঘদিনের কোষ্ঠকঠিন্যতায় ভুগছেন তারা ২ মাস নিয়মিত খেলে কোষ্ঠকঠিন্য দূর হবে। পেট স্বাভাবিক হলে সপ্তাহে ১-২ দিনের বেশি না খাওয়াই ভালো। বেশি মাত্রায় খেলে ডায়রিয়ার সমস্যা হতে পারে।

পেট পরিষ্কারে ওষুধের চেয়ে ইসবগুল অনেকগুণে উপকারী। সাধারণত কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে অর্শ্বরোগের সৃষ্টি হয়। অর্শ্বরোগ অনেক সময় ক্যান্সারের মতো মরণব্যাধিতেও রূপান্তরিত হতে পারে। এসব সমস্যার শুরু থেকে সমাধান করতে ইসবগুলের ভুসি উপকারী। ওষুধ পেটকে কেমিক্যালাইস করে; ইসবগুলের ভুসি প্রাকৃতিকভাবে আমাদের সুস্থ রাখে। প্রতি রাতে ভুসি খেয়ে ঘুমাতে যাওয়ার অভ্যাস করলে আমাশয় থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়।

ইসবগুল আমাশয়ের জীবাণু ধ্বংস করতে পারে না, তবে বের করে দিতে পারবে। তাই আমাশয়ের রোগীরা সকালে ও রাতে একগ্লাস ইসবগুলের শরবত খেলে উপকার পাবে। ওষুধ খেয়ে আমাশায় ঠিক করলে জীবাণুগুলো পেটের ভেতরে মরে গেলেও শরীর থেকে বের হয় না; যার কারণে আবারও আমাশায় রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা থাকে।

যাদের ইউরিনে জ্বালাপোড়া আছে তারা সকালে-বিকালে শরবতের সঙ্গে ইসবগুলের ভুসি খেলে প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া কমবে এবং ইউরিনের রং স্বাভাবিক হয়ে যাবে। হাতে, পায়ে জ্বালাপোড়া ও মাথা ঘোরানো রোগে আখের গুড়ের সঙ্গে ইসবগুলের ভুসি মিলিয়ে সকাল-বিকাল এক সপ্তাহ খেলে অনেক উপকার পাওয়া যাবে।

জানেন, ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কেন দাড়ি রাখা যায় না

দাড়ি রাখার অপরাধে এক জওয়ানকে বসিয়ে দিয়েছিল ভারতীয় সেনা। শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এটা সত্যি। কারণ, সেনাবাহিনীতে দাড়ি রাখার নিয়ম নেই। কেবলমাত্র ধর্মীয় কারণে দাড়ি রাখতে দেওয়া হয়। আর এই নিয়ম লঙ্ঘন করলে পেতে হয় শাস্তি।

ওই জওয়ান সুপ্রিম কোর্টেরও দ্বারস্থ হয়েছিলেন। কিন্তু সেখানেও তার আর্জি খারিজ হয়ে যায়। কিন্তু কেন এমন অদ্ভুত নিয়ম? কেন সেনাবাহিনীতে ক্লিন সেভ করাটা বাধ্যতামূলক?

সেনাবাহিনী কখনই দাড়ি বা চুল বড় করতে দেয় না। কান ঢেকে যায়, এমন চুল রাখা যায় না। শৃঙ্খলা ও সামঞ্জস্য রক্ষার জন্য এমন নিয়ম। আবার ডোগরা রেজিমেন্টে সবাই গোঁফ রাখেন। সেটাও একই শেপের হতে হবে। কারণ, সেনাবাহিনীতে কেউ আলাদা নয়। সবাই একটা সিস্টেমের অংশ মাত্র। তাই নিজেকে আলাদা বা বিচ্ছিন্ন ভাবাটা সেনাবাহিনীর নিয়ম নয়।

শিখ সৈনিকরা কেন দাড়ি রাখেন?

শিখদের ক্ষেত্রে অন্য নিয়ম। তাদের মাথায় পাগড়িতে ঢাকা বড় চুল ও দাড়ি থাকে। কারণ শিখধর্মে পাঁচটি ‘ক’ মেনে চলা বাধ্যতামূলক- কেশ, কাংঘা, কারা, কাচ্চা, কৃপাণ। কেশ অর্থাত্‍ চুল কাটা যাবে না। তাই, শিখদের ক্ষেত্রে চুল রাখতে দেওয়া হয়। আর তারা চুল ছোট রাখুন বা বড়, চুল রাখাটা তাদের ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক। যতদিন চাকরি করবে, ততদিন চুল রাখতেই হবে শিখ সৈনিকদের।

মুসলিমদের ক্ষেত্রে নয় কেন?

অনেকেই হয়ত ভাবেন যে ইসলাম ধর্মে দাড়ি রাখাটা বাধ্যতামূলক। কিন্তু তা নয়, ইসলামে এটা একজন পুরুষের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে যে তারা দাড়ি রাখবে কিনা। দাড়ি কাটার জন্য তাদের কোনও ধর্মীয় বিধান নেই। তাই তাদের ক্ষেত্রে দাড়ি রাখার বিষয়টি অনুমোদন করা হয় না।

তবে, ভারতের বাইরে অনেক দেশেই সেনাবাহিনীতে দাড়ি রাখতে দেওয়া হয়। মধ্যপ্রাচ্যে যারা দাড়ি রাখে আর যারা ক্লিন সেভ তাদের জন্য আলাদা আলাদা রেজিমেন্ট আছে।

কে সেই ভয়ঙ্কর সম্রাট যার আট স্ত্র্রীর করুন পরিণতি হয়েছিল

‘‘কারার ঐ লৌহ কপাট, ভেঙে ফেল কররে লোপাট। রক্তজমাট শিকল পুজোর পাষাণবেদী…..” কাজী নজরুলের মত এরকম হাজার লেখক যুগে যুগে অত্যচারী শাসকের বিরুদ্ধে রচনা করেছে বহু কবিতা, গান,উপন্যাস।কেউ লেখনির মাধ্যমে,আবার কেউ দলবদ্ধ হয়ে অত্যচারী শাসকের বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছে।

তবুও যুগে যুগে অত্যচারী শাসকের দেখা মিলেছে।তেমনি একজন অত্যাচারী শাসক চর্তুথ আইভান ভেসিলিভিখ।তিনি ‘আইভান দ্য টেরিবল’ বা ভয়ঙ্কর আইভান! নামে পরিচিত। তিনি রাশিয়ান গ্র্যান্ড প্রিন্স তৃতীয় আইভান ভেসিলিভিখ এর নাতি।১৫৩০ সালের ২৫ আগস্ট জন্মগ্রহণ করে চর্তুথ আইভান ভেসিলিভিখ।

১৫৪৭ থেকে ১৫৮৪ সালে মৃত্যুর আগপর্যন্ত রাশিয়ার জার তথা সম্রাট হিসেবে দায়িত্ব পালন করে গেছেন তিনি। তার শাসনামলেই কাজান, আস্ত্রাখান ও সিবির খানাত জয়ে সক্ষম হয় রাশিয়া। ফলে সেটি প্রায় ৪০,৫০,০০০ বর্গ কিলোমিটারের বিশাল এক সাম্রাজ্যে পরিণত হয়। মধ্যযুগীয় কেবল একটি প্রদেশ থেকে রাশিয়াকে বিশাল সাম্রাজ্যে রুপান্তরের কারিগর ছিলেন আইভান।

এত অর্জনের থাকলেও ব্যাক্তি জীবনে মোটই সুখী ছিলেননা তিনি।তিনি ভয়ঙ্কর রাগী ছিলেন। ‘রাগ’ নামক পশুটা মাঝে মাঝে এতটাই লাগামছাড়া হয়ে যেত যে, তখন সেটাকে সামাল দেয়াই হয়ে উঠতো কষ্টকর। এইরকম ভয়ঙ্কর সম্রাটের জীবনে একে একে আসল আটটি স্ত্রী।প্রথম স্ত্রীর স্বাভাবিক মৃত্যু হলেও বাকিদের র্নিমম পরিনতি হয়েছিল।

১ম স্ত্রী: ১৫৪৭ সালে মাত্র ষোল বছর বয়সে সিংহাসনে বসেন আইভান। অল্প কয়েকদিনের মাঝেই সম্রাট একাকীত্ব অনুভব করতে শুরু করলেন। রাজ্য আছে, চাকর-বাকর আছে, আছে বিশাল এক সেনাবাহিনী; তবু মনের কথা একান্তে বলবার জন্য মনের মানুষই যে নেই! এজন্য সিংহাসন প্রাপ্তির দু’সপ্তাহের মাঝেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেন রাজা।

রাজার বিয়ে বলে কথা। সারা রাশিয়া থেকে প্রায় ১,৫০০ অভিজাত পরিবারের বাবারা সাথে করে নিয়ে এসেছিলেন তাদের মেয়েদের, উদ্দেশ্য আদরের মেয়েটিকে সম্রাজ্ঞী বানাবেন। ক্রেমলিনে জড়ো হওয়া এতসব পাত্রীর মাঝে সেদিন আনাস্তাশিয়া রোমানোভ্‌না নামের এক তরুণীও ছিলো। শত শত তরুণীকে বাদ দিয়ে আইভানের ভালো লেগে যায় তাকেই। ব্যাস, এবার তাহলে বিয়ে হয়ে যাক!

১৫৪৭ সালে শুরু হয় আইভান-রোমানোভ্‌নার সুখের সংসার। তাদের ভালোবাসার ফসল হিসেবে সংসারে এসেছিলো ছয়টি সন্তান। কিন্তু সুখের এ সংসার খুব বেশিদিন টিকে রইলো না। ১৫৬০ সালের দিকে হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়লেন সম্রাজ্ঞী। রাজ্যের সেরা চিকিৎসকদের চিকিৎসাতেও কোনো লাভই হচ্ছিলো না, দিন দিন স্বাস্থ্যের কেবল অবনতিই ঘটছিলো। অবশেষে সবাইকে কাঁদিয়ে সেই বছরই পরপারে পাড়ি জমান তিনি।

এ ঘটনার পর ক্রোধে উন্মত্ত হয়ে পড়েন সম্রাট আইভান। তিনি ভাবতে শুরু করেন তাকে হত্যা করতে গিয়েই হয়তো তার স্ত্রীকে বিষ মেশানো কিছু খাইয়ে হত্যা করা হয়েছে। রাশিয়ান বয়ারদের উপর আগে থেকেই ক্ষোভ ছিলো আইভানের। এ দুর্ঘটনা যেন সেই আগুনে ঘি ঢেলে দিলো। এরপর বিনা বিচারে অগণিত মানুষকে নির্মম নির্যাতন সইতে হয়েছে, মারাও গিয়েছে অনেকে।

ঐতিহাসিকগণ বলে থাকেন, রোমানোভ্‌নার মাঝে এক বিশেষ কোমলতা ছিলো যা আইভানের উন্মত্ততাকে বশীভূত করতে পারতো সহজেই। তার মৃত্যুই যেন শেকলে বাঁধা হিংস্র হায়েনাকে আরো উন্মত্ত করে ছেড়ে দেয়। সাম্প্রতিক বিভিন্ন গবেষণা থেকে ধারণা করা হয় যে, সম্রাজ্ঞীকে খুন করতে সম্ভবত পারদই ব্যবহার করা হয়েছিলো বিষ হিসেবে। তবে সেটাও পুরোপুরি নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। কারণ তৎকালে ওষুধ হিসেবেও এর প্রচলন ছিলো।

২য় স্ত্রী: রোমানোভ্‌নার মৃত্যুর এক বছর পরেই মারিয়া তেম্রিয়ুকোভ্‌না কে সম্রাজ্ঞী করে ঘরে তোলেন আইভান। কিন্তু নতুন সম্রাজ্ঞীকে মন থেকে কেউই মেনে নিতে পারছিলো না, সবাই তাকে ভয় পেতো। এমনকি অনেকে বলতো তাকে নাকি দেখতে ডাইনীদের মতো লাগে! অনেকেই ভাবতো নতুন সম্রাজ্ঞী হয়তো তাদের সম্রাটকে দিয়ে নিজের কার্যসিদ্ধি করিয়ে নিচ্ছেন।

আইভানের প্রথম সংসারে ছয় সন্তানের জন্ম হলেও এদের চারজনই শৈশবে মারা যায়, বেঁচে থাকে শুধু দুজন- আইভান ও ফিওদর। এ দুজনকে সহ্যই করতে পারতেন না মারিয়া। মারিয়ার গর্ভে আইভানের এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়, নাম ছিলো তার ভাসিলি। কিন্তু দুর্ভাগা ভাসিলি জন্মের মাসখানেক পরই মারা যায়।

এভাবে আট বছর মারিয়ার সাথে সংসার টিকে ছিলো আইভানের। অবশেষে ১৫৬৯ সালে মাত্র ২৫ বছর বয়সে মারা যান আইভানের এ জীবনসঙ্গিনীও। গুজব আছে যে, দ্বিতীয় স্ত্রীকে নাকি সম্রাট নিজেই বিষ প্রয়োগে হত্যা করেছিলেন। তবে রাজা কখনো এর সত্যতা নিশ্চিত করেন নি। বরঞ্চ মারিয়াকে খুনের অভিযোগ এনে আবারো অনেক লোককে নির্যাতন আর হত্যার মাধ্যমে মনের জ্বালা মেটান তিনি।

৩য় স্ত্রী: তৃতীয় এ বিয়ের সময় আবারো প্রথম বিয়ের মতো পাত্রীর সন্ধান করেন তিনি।অবশেষে সকল পরীক্ষায় সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হয়ে রাশিয়ার নতুন সম্রাজ্ঞী হবার যোগ্যতা অর্জন করেন মার্ফা সোবাকিনা। ১৫৭১ সালের ২৬ জুন আইভানের সাথে সোবাকিনার বাগদান সম্পন্ন হয়। এতকিছু করেও শেষ রক্ষা হলো না।

বিয়ের অল্প কয়েকদিনের মাথায় মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন নতুন সম্রাজ্ঞী। অবশেষে বিয়ের সাজসজ্জা রাজপ্রাসাদ থেকে ঠিকমতো মুছে যাবার আগেই মাত্র দু’সপ্তাহের মাথায় মারা যান সোবাকিনা। তখন তার বয়স হয়েছিলো মাত্র ১৯ বছর। সোবাকিনার মৃত্যুর কারণ হিসেবেও বিষপ্রয়োগকেই মূল কারণ হিসেবে দেখেন অধিকাংশ ইতিহাসবেত্তা।

৪র্থ স্ত্রী: আগের তিন স্ত্রীর মৃত্যুর পেছনের কারণ হিসেবে সন্দেহ করা হচ্ছিলো বিষ প্রয়োগকে। তাই এবার রানী নির্বাচনের ব্যাপারে বেশ সতর্কতা অবলম্বন করলেন আইভান। অনেক ভেবে-চিন্তে তিনি ঘরে তুললেন অ্যানা কল্‌তোভ্‌স্কায়া কে।

ওদিকে সম্রাটের সাথে এ বিয়ে নিয়ে ঝামেলা বেধে যায় রাশিয়ান অর্থোডক্স চার্চের। কারণ চতুর্থ বিয়ে তারা কখনোই স্বীকৃতি দেয় না। তাদের দৃষ্টিতে এটি ধর্মবিরোধী এক কাজ।  তাই চার্চের আশীর্বাদ ছাড়াই বিয়ে করে এক ছাদের নিচে বসবাস শুরু করেন আইভান-অ্যানা দম্পতি।

বিয়ের দু’বছর পরও অ্যানার গর্ভে কোনো সন্তান না আসায় ধৈর্যের বাধ ভেঙে যায় আইভানের। তাই তিনি সিদ্ধান্ত নেন অ্যানাকে একটি আশ্রমে পাঠিয়ে দেবার। সেখানে মাটির নিচের এক অন্ধকার কুঠুরিতেই বন্দী করে রাখা হয় তাকে। আইভানের মৃত্যুর পরও জীবিত ছিলেন অ্যানা। আশ্রমের কর্তৃপক্ষ তখন তাকে মুক্তি দিতে চাইলেও তিনি আর সেই কুঠুরি ছেড়ে যেতে চান নি। অবশেষে ১৬২৬ সালে আশ্রমের সেই অন্ধকার ঘরেই মারা যান তিনি।

৫ম স্ত্রী. অর্থোডক্স চার্চের নিয়মানুযায়ী আর কোনো বিয়ে করারই অধিকার ছিলো না আইভানের। ওদিকে ১৫৭৩ সালের নভেম্বর মাসে মারিয়া দোল্গরুকায়ার প্রেমে পড়ে যান আইভান। তার শয়নে-স্বপনে-জাগরণে তখন কেবলই মারিয়ার ছবি ভাসতো। তাই প্রেমের ডাকে সাড়া দিতে গোপনে মারিয়ার সাথে বিয়ের কাজটা সেরে ফেলেন তিনি।

গোলমাল বেধে যায় বাসর ঘরে। সেই রাতে স্ত্রীর সতীত্ব নিয়ে আইভানের মনে সন্দেহ দেখা দেয়। ব্যাস, আর যায় কোথায়! সম্রাটের সন্দেহ বলে কথা। রাগে হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে যান তিনি, আদেশ দেন সম্রাজ্ঞীকে ঘোড়ার লেজের সাথে বাঁধার জন্য। এরপর ঘোড়াগুলোকে আঘাত করলে সেগুলো ছুটতে শুরু করে। মারিয়ার শেষ পরিণতি যে কী হয়েছিলো তা বোধহয় না বললেও চলে।

৬ষ্ট স্ত্রী: একবার আইভান গিয়েছিলেন প্রিন্স পিটার ভাসিলচিকভের সাথে দেখা করতে। সেখানে গিয়েই তার নজর পড়ে পিটারের সপ্তদশী কন্যা অ্যানার দিকে। অ্যানার রুপ-লাবণ্যে আইভানের পাগল হবার দশা হয়। আবারো বিয়ের রঙ উঁকি দিয়ে যায় তার মনে। পরদিন তাই ঘটকের মাধ্যমে সম্বন্ধ চলে যায় অ্যানার বাবার কাছে।

মেয়েকে আইভানের হাতে তুলে দিতে তার মন সায় দিচ্ছিলো না। ওদিকে সম্রাটের পক্ষ থেকে পাঠানো ঘটকদের “না” বলার সাহসটুকুও তার ছিলো না। তাই অ্যানা ভাসিল্‌চিকোভাহন আইভানের নতুন সম্রাজ্ঞী।কিন্তু দু’বছর পর অ্যানাকেও পাঠিয়ে দেয়া হয় এক আশ্রমে। সেখানে বন্দী অবস্থাতেই তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ধারণা করা হয়, এর পেছনে আইভানের নির্দেশ ছিলো।

৭ম স্ত্রী: ভাসিলিসা মেলেন্তিয়েভা ছিলেন আইভানেরই পরিচিত এক শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তির স্ত্রী। লোকটির অসুস্থতার খবর শুনতে পেরে তিনি তাকে দেখতে আসেন। তখনই ভাসিলিসার দিকে নজর পড়ে যায় আইভানের, আবারো জেগে ওঠে তার প্রেমিক সত্ত্বা। স্বামীর মৃত্যুর অল্প কিছুদিন পরই তাই ভাসিলিসাকে দেখা যায় আইভানের প্রাসাদে চলে আসতে।

দুই বছর ধরে সুখেই সংসার করেন তারা। কিন্তু একটি বড় সত্যের কথা জানতেন না আইভান। ভাসিলিসা বিয়ের পর লুকিয়ে লুকিয়ে চুটিয়ে আরেকটি প্রেমও করছিলেন। একদিন শোবার ঘরে এসে স্ত্রীকে তার প্রেমিকার সাথে আবিষ্কার করেন আইভান!

যাহ্‌ বাবা! সব তো শেষ এখানেই। কীসের প্রেম, কীসের স্ত্রী! আবারো পাগলা কুকুরের মতোই ক্ষেপে উঠলেন সম্রাট আইভান। তার সাথে প্রতারণা! তার ভালোবাসা নিয়ে ছিনিমিনি খেলা! এমনটা কিছুতেই বরদাশত করতে পারলেন না তিনি। সম্রাটের নির্দেশে দুজনকেই বন্দী করা হয়। এরপর একটি গর্ত করে দুজনকেই সেখানে পুঁতে ফেলা হয়। কথিত আছে, ভাসিলিসাকে জীবন্তই মাটি চাপা দেয়া হয়েছিলো।

৮ম স্ত্রী: মারিয়া ফিওদোরভনা নাগোয়া ছিলেন অাইভানের সর্বশেষ সহধর্মিনী  শুরুর দিকে সুন্দরী মারিয়াকে নিয়ে সুখেই দিন কাটছিলো বুড়ো আইভানের। কিন্তু সবসময় স্ত্রীকে মনমরা থাকতে দেখে একসময় তার মনও বীতশ্রদ্ধ হয়ে ওঠে নতুন স্ত্রীর প্রতি।

তাই এই স্ত্রীকে শেষ করে কীভাবে আরেকজন সম্রাজ্ঞী ঘরে আনা যায়, সেই ছকও কষতে শুরু করে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু আফসোস, নতুন স্ত্রী ঘরে আনার আগেই আইভানের পরপারের ডাক এসে গিয়েছিলো। ১৫৮৪ সালের ২৮ মার্চ দাবা খেলতে থাকা অবস্থায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি। শুধু তাই নয় তার নিষ্টুরতায় র্নিমমভাবে বলি হয়েছে তার নিজের পুত্র আইভান আইভানোভিচ।

এই দরজার কাছে গেলেই মিনিটের মধ্যে মৃত্যু অবধারিত

গ্রিসের এক প্রাচীন নিদর্শন। দর্শনী তো বটেই। তবে তার বেশি কাছে গেলেই বিপদ। মৃত্যুর অন্ধকার টেনে নিয়ে যায় মানুষকে। বহু বছর ধরে তাই এই জায়গার ধারে-কাছে যায় না কেউ। এই দরজার কাছে গেলেই মিনিটের মধ্যে মৃত্যু অবধারিত। অবশেষে সেই রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হয়েছে।

‘Hades’ Gate’ নামে পরিচিত এই জায়গা। বর্তমানে এটি তুরস্কের ওয়েস্টার্ন ডেনিজিল প্রদেশে অবস্থিত। জানা যায়, এটির ধারে-কাছে যে কোনও মানুষ বা পশু গেলেই তার মৃত্যু হয়। গবেষণা করে বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, এটা নেহাত গল্পকথা নয়। এটাই সত্যি।

সম্প্রতি প্রত্নতত্ত্বের উপর লেখা একটি জার্নালে বিজ্ঞানীরা বলছেন, ওই অঞ্চলে সমানে বিপুল পরিমাণ কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গত হচ্ছে। আজও পর্যন্ত একইভাবেই বেরিয়ে আসছে বিষাক্ত গ্যাস। আর তাই সেখানে গেলেই মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। তবে সূর্য কোনদিকে উঠছে আর হাওয়া কোনদিকে বইছে, সেটার উপর নির্ভর করে কোনদিক থেকে বেরোবে কার্বন-ডাই-অক্সাইড।

রাতে এত বেশি পরিমাণ গ্যাস বেরোয় যে, এক মিনিটের মধ্যে মানুষের মৃত্যু হতে পারে। প্রাচীন গল্পে শোনা যায়, এখানে অনেক মানুষ, ভেড়া, পাখির মৃত্যু হয়েছে।

জানেন, আনারস আর দুধ একত্রে খেলে আসলে কি হয়

জানেন, আনারস আর দুধ একত্রে খেলে আসলে কি হয়? আনারস একটি ভিটামিন ‘এ’ এবং ‘সি’ সমৃদ্ধ ফল। এছাড়া অনেক গুণে গুণান্বিত একটি ফল। তাছাড়া আনারসে রয়েছে ক্যালসিয়াম,পটাশিয়াম ও ফসফরাস। আর দুধকে আমরা সুষম খাদ্য হিসেবে বিবেচনা করি। তবে আনারস আর দুধ একসঙ্গে খেলে মানুষ বিষক্রিয়া হয়ে মারা যায়-এ রকম একটি ধারণা প্রচলিত আছে।

আসলেই কি এরকম কিছু হয়? আসুন জেনে নেই আসলে কী হয় আনারস আর দুধ একসঙ্গে খেলে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের ডিন অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ বলেন, ‘আনারস ও দুধ একসঙ্গে খেলে বিষক্রিয়া হয়ে কেউ মারা যায় এই ধারণা ভুল। এগুলো এক ধরনের ফুড ট্যাবু বা খাদ্য কুসংস্কার।’

অ্যাপোলো হাসপাতালের প্রধান পুষ্টিবিদ তামান্না চৌধুরী বলেন, ‘আনারস একটি এসিডিক খাবার। আর দুধ হলো অ্যালকালাইন বা ক্ষার। দুধ যদি পাস্তুরিত না হয়, তবে কাঁচা দুধ ও আনারসের সমন্বয়ে শরীরে বিক্রিয়া হতে পারে। দুধের সঙ্গে আনারসের সঠিক সমন্বয় না হলে শারীরিক সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ ক্ষেত্রে অন্যান্য খাবারের বেলাতেও একই বিষয় হতে পারে।’

তামান্না চৌধুরী আরো যোগ করেন, ‘আমরা বিভিন্ন সময়ই পাইনা অ্যাপেল কাস্টার্ড, ডেজার্ট, পাইন অ্যাপেল স্মুদি, পাইন অ্যাপেল মিল্ক সেক, পাইন অ্যাপেল সালাদ, পাইন অ্যাপেল ইয়োগার্ট ইত্যাদি খাই। এতে সমস্যা হয় না। কারণ এগুলোর মধ্যে খাদ্যের সঠিক সমন্বয় থাকে এবং নিয়মমাফিক বা সঠিক নিয়মে বানানো হয়।

আর হয়তো এক গ্লাস দুধ খেলেন, পাশাপাশি আনারস খেয়ে নিলেন তাহলে সঠিক খাদ্যের সমন্বয় হয় না। এ ক্ষেত্রে সঠিক সমন্বয় না হওয়ার ফলে পাতলা পায়খানা, বদ হজম, এসিডিটি ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে। তবে বিষক্রিয়া হয়ে মৃত্যু হওয়ার আশঙ্কা নেই।’

তবে ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘আনারস আর দুধ বিরতি দিয়ে খাওয়াই ভালো। দুই থেকে তিন ঘণ্টা বিরতি দিয়ে খাওয়া যেতে পারে। নয়তো অনেক সময় পেটে গিয়ে হজমের সমস্যা হতে পারে। তবে যদি সঠিক নিয়মে খাবার বানানো হয় এবং সঠিক খাদ্যের সমন্বয় থাকে তাহলে কোনো সমস্যা হবে না।

মানুষরূপী এক নরপিশাচের গল্প: এক ফোন-কলে ভণ্ডুল ১০১ খুন!

দুপুরের পর খুব একটা ঝামেলা থাকে না। চেয়ারে বসেই চোখ বন্ধ করে বিশ্রাম নিচ্ছেন পুলিশের এক কর্মকর্তা। একসময় ঘুমিয়েই পড়লেন। বার বার তার মাথাটি পেছন দিকে হেলে যাচ্ছে। তখনই ঘুম ভেঙে যাচ্ছে তার। আবার ঘুমুচ্ছেন, আবার ভাঙছে। ঘুমিয়ে যাওয়া আর ঘুম ভাঙার মধ্যেই চলছে তার বিশ্রাম। পুরোপুরি ঘুম ভেঙে যায় ল্যান্ড-ফোনের কর্কশ রিং-টোনে। সোজা হয়ে বসে রিসিভার তুললেন।

‘হ্যালো! হ্যাঁ এটা ফরিদগঞ্জ থানা, ডিউটি অফিসার বলছি। কে বলছেন প্লিজ। ’ ওপাশ থেকে কিছু একটা শুনেই পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘শুনতে পাচ্ছি না। কোন খাল? বালিথুবায় বিআর খাল? আচ্ছা।

আপনি কে বলছেন? হ্যালো, হ্যালো!’ ওপাশে আর কোনো কথা নেই। ফোন রেখে দিলেন কর্মকর্তাটি। ওয়্যারলেস করলেন। টহল পুলিশকে খালপাড়ে লাশ পড়ে থাকার খবর জানিয়ে দিলেন। টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখে খালপাড়ের কাছে প্রচুর মানুষ। তারা নাক চেপে আছে। কচুরিপানার আড়ালে ২০ থেকে ২২ বছরের এক নারীর লাশ পড়ে আছে। মুখে কাপড় গোঁজা। শরীরে সিগারেটের ছেঁকা। লাশ দেখে পুলিশ বুঝতে পারে, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। লাশের পরিচয় মেলেনি। কিছু দিন পর আবারও একই ধরনের ফোন-কল। এবার বিলের পাশে! পুলিশ লাশটি উদ্ধার করতে গিয়ে থমকে যায়। কদিন আগে বিলের পাশ থেকে উদ্ধার করা নারীর লাশের দেহে যে ধরনের নির্যাতনের চিহ্ন ছিল, এই মহিলার শরীরেও একই চিহ্ন!

এর কিছু দিন পর আবারও নারীর লাশের খবর! পুলিশকে এবার ভাবিয়ে তোলে। তদন্ত করতে পুলিশ মাঠে নামলেও কোনো কূলকিনারাই করতে পারছে না। এই তদন্তের মধ্যেই পরপর আরও তিন লাশ পড়ে থাকার খবর পেয়ে পুলিশ নিজেই আতঙ্কিত। কারণ ছয়জনকেই ধর্ষণের পর একই কায়দায় হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ নিশ্চিত এটি কোনো সিরিয়াল কিলারের কাজ।

২০০৭ সালে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে এমন ছয় নারীর লাশ উদ্ধারের পর অজ্ঞাতনামা থেকে যাচ্ছিল। শ্রেণি-পেশায় মিল ছিল না কোনো লাশের। তবে একটি জায়গায় মিল ছিল, সব লাশই নারীর। ধর্ষণের পর কে বা কারা তাদের খুন করে ফেলে রাখছে। খালে, বিলে, নদীতে মিলছে লাশ। কিন্তু ঘটনার কূলকিনারা করতে না পারায় পুলিশ দিশাহারা।

একে একে নারীর লাশ পড়ছে। না পারছে পুলিশ খুনিকে আটকাতে, না পারছে হতভাগী এসব নারীর পরিচয় বের করতে। এতে ফরিদগঞ্জের ঘরে ঘরে আতঙ্ক। বিশেষ করে নারীরা ঘর থেকে বের হওয়ার সাহস পাচ্ছিলেন না। সন্ধ্যার পর কোনো নারীকেই তখন ঘরের বাইরে দেখা যেত না। সন্ধ্যার পর খাল-বিলের ধারেকাছে কেউ যেতেন না। পুলিশের টহলও বাড়ানো হয়। কিন্তু ২০০৯ সালের মধ্যে সেখানে পাওয়া যায় আরও পাঁচ নারীর লাশ। ভৌতিক পরিস্থিতি সর্বত্র। সর্বশেষ যে নারীর লাশ পাওয়া যায়, শুধু তার পরিচয় মেলে। ওই নারীর নাম পারভীন। বাসা টঙ্গীতে।

২০০৯ সালে ফরিদগঞ্জ থানায় চাকরি করতেন এমন একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘ওই বছর ২১ জুলাই চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার কড়ইতলী গ্রামে একটি খালপাড় থেকে পারভীন নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। সুরতহাল প্রতিবেদনে দেখা যায়, ওই নারীকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে খুন করা হয়েছে। তার শরীর ও যৌনাঙ্গে ছিল সিগারেটের ছেঁকা। মুখের ভিতরে শাড়ির অংশ গোঁজা ছিল। ’

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রথম দিকে হত্যাকাণ্ডটি ছিল সূত্রবিহীন। পুলিশ কোনোভাবেই বুঝতে পারছিল না কারা, কী উদ্দেশ্যে ওই নারীকে খুন করেছে। কিন্তু পুলিশের সূত্র মিলে যায় একটি মোবাইল ফোন-কল থেকে। ওই ঘটনার পরদিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মোবাইলে ফোন আসে। এক ব্যক্তি নিজেকে রিকশাচালক পরিচয় দিয়ে জানান, যে নারীর লাশ পাওয়া গেছে তাকে আগের দিন বাসস্ট্যান্ড থেকে বহন করে এনেছিলেন।

গ্রামের দুই যুবকের নাম জানিয়ে বলেন, এরা ওই মহিলার সঙ্গে ছিল। পুলিশ ওই দুই যুবককে আটক করে। কিন্তু তাদের কাছে কোনো তথ্য পায় না পুলিশ। মাসখানেক পর তারা জামিনে মুক্ত। ’ হঠাৎ পুলিশের এই কর্মকর্তার মনে পড়ে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে আসা সেই ফোন-কলটির কথা। কিন্তু ফোনটি ছিল বন্ধ। পুলিশ হতাশ। ফোনটি খোলা থাকলেই খোঁজ নেওয়ার জন্য একজন পুলিশ সদস্যকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এক মাস পর ফোনটি খোলা পাওয়া যায়। পুলিশ জানতে পারে ফোনটি ব্যবহার হচ্ছে টঙ্গীতে।

ওই ফোন নম্বরে কল করে পুলিশ জানতে পারে, ফোনটি গাজীপুর বাজারের আখ এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে কেনা হয়েছে। পুলিশ আখ ব্যবসায়ী তাজুকে আটক করলে তিনি জানান, ২ আগস্ট রসু খাঁ ও মিজান নামের দুই ব্যক্তি তাদের মসজিদ থেকে ফ্যান চুরি করতে গেলে তিনি ও নৈশপ্রহরী মিলে দুজনকে হাতেনাতে আটক করেন। তখন তিনি রসু খাঁর কাছ থেকে সিমটি কেড়ে নিয়েছিলেন। পরে তিনি সেটি ১০০ টাকায় বিক্রি করে দেন। পুলিশ দিনক্ষণ হিসাব করে নিশ্চিত হয়, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রথম ফোনটি করেছিলেন রসু নিজে। তাজুর দেওয়া সূত্র অনুযায়ী টঙ্গীর মিরাশপাড়া থেকে ৭ অক্টোবর রাতে পুলিশ রসুকে গ্রেফতার করে। প্রথম দিকে রসু কোনো কিছু স্বীকার করেননি। এরপর জিজ্ঞাসাবাদ করতে শুরু করলে রসু খাঁ পুলিশকে গালমন্দ করতে থাকেন। পুলিশ জেরা অব্যাহত রাখলে একপর্যায়ে তিনি পারভীন নামের নারীকে খুনের কথা স্বীকার করেন। পুলিশের তখন সন্দেহ হয়। পারভীন খুনের সঙ্গে তো আগের খুনগুলোর হুবহু মিল রয়েছে। তবে কি এই লোক জড়িত? পুলিশের এমন ভাবনায় সুফল পাওয়া যায়। জেরার মুখে রসু একে একে চাঁদপুরে ১১টি খুনের কথা স্বীকার করেন। এরপর আদালতে নেওয়া হলে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেন।

এর পরের গল্প মানুষরূপী এক অমানুষের : রসু পুলিশি জেরায় বলেছেন, বিয়ের আগে তিনি একটি মেয়েকে ভালোবাসতেন। কিন্তু তার ভাইয়েরা মেরে তার হাত ভেঙে দেন। এর পরই তিনি খুনের পরিকল্পনা করেন। একে একে খুন করতে থাকেন। তিনি পুলিশকে জানান, ‘আমি আমার অপমানের প্রতিশোধ নিতে খুন করি। ১০১ খুনের পর আর খুন করতাম না। আমি সন্ন্যাসী হতাম। মাজারে মাজারে ঘুরতাম। ’

পুলিশ তার কাছ থেকে জানতে পারে, নানা কৌশলে মেয়েদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তাদের নিয়ে অভিসারে যাওয়ার কথা বলে একের পর এক হত্যা করতেন রসু খাঁ। শুধু খুনেই এই নরপিশাচের প্রতিহিংসার সমাপ্তি ঘটেনি, খুনের আগে ওই নারীদের ধর্ষণও করেন তিনি। রসু খাঁ প্রতিটি ঘটনাই ঘটিয়েছেন খাল, বিল বা নদীর ধারে। প্রথমে তিনি ধর্ষণ করতেন। এরপর সারা শরীরে সিগারেটের ছেঁকা দিতেন। মুখে কাপড় গুঁজে গলা টিপে ধরেন। এরপর পানিতে মাথা ঠেসে ধরে রাখেন। যতক্ষণ নারীটির দেহ থেকে প্রাণ বেরিয়ে না যায় ততক্ষণ রসু পানির নিচেই মাথা ঠেসে ধরে রাখতেন। এসব বর্ণনা তিনি নিজেই দিয়েছেন পুলিশের কাছে।

চাঁদপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমিরুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় নরপিশাচ রসু জবানবন্দি দেন। এতে ফরিদগঞ্জে সংঘটিত সব খুনের বর্ণনা দেন তিনি। সর্বশেষ ২০০৯ সালের ২০ জুলাই ফরিদগঞ্জের হাসা গ্রামের একটি খালপাড়ে রসু ও তার ভাগ্নে জহিরুল মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ শেষে খুন করেন পারভীন নামের এক নারীকে। এর আগে ২০০৭ সালে ফরিদগঞ্জের ভাটিয়ালপুরে শাহিদা নামে আরেক নারীকে ধর্ষণের পর খুন করেন রসু। একই বছর ফরিদগঞ্জের প্রত্যাশী এলাকায় বন্ধু মানিকের প্রেমিকা আঙ্গুর বেগম বন্ধুর সঙ্গে প্রতারণা করায় ফরিদগঞ্জে এনে তাকে খুন করেন রসু।

২০০৯ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি টঙ্গীতে ভাড়া থাকার সময় পাশের ভাড়াটিয়ার ছোট ভাই শাহিনের সঙ্গে এক মেয়ে প্রতারণা করায় তাকেও ফরিদগঞ্জের হাসা গ্রামে নিয়ে ধর্ষণের পর পানিতে ডুবিয়ে হত্যা করেন রসু। ২০০৭ সালে ওই গ্রামের হোসনে আরা নামে একজন এবং একই বছর বালিথুবায় বিআর খালে পলাশ নামে আরেক নারীকে নির্যাতনের পর হত্যা করেন রসু। ২০০৮ সালের ১৮ ডিসেম্বরে ফরিদগঞ্জের নানুপুর খালপাড়ে নিয়ে ধর্ষণ শেষে খুন করেন ফরিদপুুরের শাহিদাকে। ওই বছর ২৩ ডিসেম্বর দক্ষিণ বালিয়া গ্রামে এনে খুন করেন কুমিল্লার কোহিনূরকে। ২০০৯ সালের ১৩ মার্চ উপজেলার দুর্গাদি গ্রামে এনে খুন করা হয় রংপুরের মেয়ে মেহেদীকে। রসুর হাতে খুন হওয়া নারীদের লাশগুলো উদ্ধারের পর পুলিশ অজ্ঞাত বলে চিহ্নিত করলেও প্রতিটি ক্ষেত্রে মামলা হয়। এর মধ্যে ফরিদগঞ্জ থানায় ৬টি, চাঁদপুর সদর থানায় ৪টি ও হাইমচর থানায় ১টি।

দুই বোনকে বিয়ে : পুলিশ জানায়, রসু বিকৃত যৌনাচারে অভ্যস্ত ছিলেন। তিনি সব মেয়েকে একই কায়দায় যৌন নির্যাতন করতেন। তিনি স্ত্রীর আপন ছোট বোনকে বিয়ে করেন। তার প্রথম স্ত্রী মণির এক চোখ অন্ধ ছিল। এরপর তিনি স্ত্রীর ছোট বোন রীনা বেগমকে বিয়ে করেন। কিন্তু প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে তার আর ছাড়াছাড়ি হয়নি। তবে রীনা পুলিশকে জানান, চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ার সময় রসু রাস্তা থেকে তাকে অপহরণ করে নিয়ে যান। এ নিয়ে গ্রামে শালিসিও হয়।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, দুনিয়ার কুখ্যাত সব সিরিয়াল কিলারের হত্যার প্রকৃতি বিশ্লেষণ করলে বিশেষ ধরনের বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। চাঁদপুরের সিরিয়াল কিলার রসু খাঁও এর ব্যতিক্রম নন। তিনি খুন করেছেন নারীদের। সেই নারীরা সবাই হতদরিদ্র পরিবারের। এদের একজন ছাড়া সবাইকে তিনি খুনের আগে ধর্ষণ করেছেন। সবাইকে খুন করেছেন রাতের বেলায়। সবাইকে খালের কিনারে নিয়ে খুন করেছেন এবং সবার লাশও ফেলে রেখেছিলেন খালের পাশেই। কোনো খুনের ঘটনার সঙ্গে রসু খাঁ তাকে শনাক্ত করার মতো কোনো চিহ্ন রেখে যাননি।

পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, তবে চাঁদপুর থানা পুলিশের কাছে একটি মাত্র ফোন-কলই রসু খাঁর ১০১ নারীকে খুন করার পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। ধরা না পড়লে হয়তো তিনি এভাবেই একের পর এক খুনের ঘটনা ঘটিয়েই যেতেন। রসুর বাড়ি চাঁদপুর সদর উপজেলার চান্দ্রা ইউনিয়নের মদনা গ্রামে। নরপিশাচ রসু জেলখানায় বন্দী। বীভৎস সেসব খুনের ঘটনায় তিনি এখন বিচারের মুখোমুখি। চাঁদপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ অরুণাভ চক্রবর্তী একটি হত্যা মামলায় এই সিরিয়াল কিলারের ফাঁসির রায় দিয়েছেন।

একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা কীভাবে হয়? রইল মারাত্মক লজ্জাকর তথ্য

সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় আল্ট্রাভায়োলেট আলোর সাহায্যে মেয়েটির শরীর পরীক্ষা করে দেখা হয় তার শরীরের কোনও অংশে বীর্যের কোন চিহ্ন রহেছে কি না।

কীভাবে হয় একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরিক্ষা? সম্প্রতি ডাক্তার কে এস নারায়ন রেড্ডি,ডাক্তার ও পি মূর্তি তাদের ‘দা এসেন্সিয়ালস অফ ফরেনসিক মেডিসিন এন্ড টক্সিকোলজি’বইতে জানিয়েছেন সেই প্রশ্নের উত্তর। সেই বই থেকে ধর্ষণোত্তর ডাক্তারি পরীক্ষার যে বিবরণ দেওয়া হয়েছে তা শিউরে ওঠার মতো সেই বই থেকে তুলে দেওয়া হল ১০ টি তথ্য –

১. ডাক্তারি পরীক্ষার সময়ে একটি একটি করে রোগিনীকে তার সমস্ত পোশাক খুলে নিতে হয় একজন ডাক্তারের উপস্থিতিতে। একটি কাগজের টুকরোর উপরে দাঁড়িয়ে এই কাজ করতে হয়, যাতে পোশাক খোলার সময়ে মেয়েটির শরীর থেকে নীচে খসে পড়া যে কোনও কিছু বা সমস্ত কিছু ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা যায়। শরীরে লেগে থাকা রক্ত, বীর্য, কাদা, কিংবা ঘাম— যা কিছু অপরাধের প্রমাণ হিসেবে কাজে লাগতে পারে, সংগ্রহ করা হয় মেয়েটির শরীর থেকে।

২. সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় আল্ট্রভায়োলেট আলোর সাহায্যে মেয়েটির শরীর পরীক্ষা করে দেখা হয় তার শরীরের কোনও অংশে বীর্যের কোনও চিহ্ন রয়েছে কি না।

৩. শরীরে তৈরি হওয়া কোনও কাটা, ছড়া বা ছাল উঠে যাওয়ার মতো ক্ষতস্থান— যেগুলি ধস্তাধস্তির ফলে তৈরি হতে পারে, সেগুলিকে খুঁটিয়ে দেখে পরীক্ষা করা হয়।

৪. শরীরের আঘাতপ্রাপ্ত অংশগুলি, বিশেষত যৌন অঙ্গের ক্লোজ আপ ছবি নেওয়া হয়।

৫. মেয়েটির শরীরের কোনও অংশে কতটা চাপ পড়েছে তার উপর নির্ভর করে কী ধরনের ক্ষত তৈরি হবে সেই অংশে। যদি মেয়েটির পিঠে বা কোমরে ছড়ে যাওয়ার দাগ থাকে, তাহলে বুঝতে হবে, মেয়েটিকে কোনও পাথুরে বা শক্ত জমির উপর ফেলে নির্যাতন চালানো হয়েছে। স্তনবৃন্তে কামড় বা অন্য কোনও আঘাতের চিহ্নও পাওয়া যেতে পারে।

৬.তবে সাধারণ লাঞ্ছিতার ১/৩অংশের শরীরের এই ধরনের কোনও ধস্তাধস্তির চিহ্ন দৃশ্যমান হয় না, কারণ ধর্ষণের সময়ে মেয়েরা ভয়ের চোটে সাধারণত আক্রামণকারী খুব একটা বাধা দেয় না। বিশেষত মেয়েটির মাথায় যদি আগাত করা হয়, তাহলে তার বাধা দেওয়ার ক্ষমতা এবং সাহস কমে যায় অনেকটাই। সেসব ক্ষেত্রে তার শরীরের অন্যান্য অংশে তেমন গুরুতর আঘাতের চিহ্ন আর থাকে না।

৭.মেয়েটির যৌন কেশ খুঁটিয়ে পরীক্ষা করে দেখা হয়, সেখানে কোনও পুরুষের যৌন কেশ কিংবা ধুলোবালি ইত্যাদি লেগে রয়েছে কিনা। ধর্ষিতা জীবিত হোক বা মৃত, তার অন্তত ১৫-২০ টি যৌন কেশ সংগ্রহ করা হয় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য।

৮. মেয়েটির মাথার চুলও সংগ্রহ করা হয় পরীক্ষার জন্য।

৯.ধর্ষিতার যৌন কেশ কিংবা যৌনির আশেপাশে বীর্যের কোনও লক্ষণ পাওয়া যায় কিনা তা খুটিয়ে দেখা হয়। তুলোর সাহায্যে মেয়েটির যৌনিরস সংগ্রহ করে ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য। খুটিয়ে দেখা হয় মেয়েটির সতীচ্ছদের অবস্থাও।

১০. যদি অপরাধ ঘটে থাকে ৪৮ ঘন্টা কিংবা তারও বেশি সময় আগে,তাহলে একটি কাচের রড, তুলো কিংবা স্প্যাটুলার সাহায্যে যৌনির ভিতর থেকে সংগ্রহ করা হয় যৌনিরস। দেখা হয়, তাতে বীর্য কিংবা রক্তের কোনও নমুনা মিলছে কি না।